লাশ হয়ে ফিরলেন বাঘার কৃষক

 প্রকাশ: ০৫ মে ২০২২, ০৬:০১ অপরাহ্ন   |   জেলার খবর


বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ

  নওগাঁর আত্রাইয়ে ধান কাটতে গিয়ে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন বাঘার কদম আলী (৫৪) নামে এক কৃষক।  তিনি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভার গোচর গ্রামের মৃত আবদুর রহমানের ছেলে।


ঈদের দিন মঙ্গলবার রাতে বুকে প্রচন্ড ব্যথা অনুভব হলে তাকে চিকিৎসকের কাছে নেওয়া হয়। সেখানেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ধানের জমির মালিক রানা মন্ডল।


তিনি বলেন, আমার বাড়িতে ধান কাটতে এসে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে তাকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে।


পারিবারিক সূত্র জানায়, কদম আলীসহ ২২ জনের একটি দল গত ২২ এপ্রিল নওগাঁর আত্রাই উপজেলার বিশা ইউনিয়নের জগনাথপুর গ্রামে ধান কাটতে যায়। কদম আলীসহ ৭ জনের একটি দল রানা মন্ডলের বাড়ি গিয়ে ধান কাটা শুরু করে। কয়েক দিন তারা ধানও কাটেন। ঈদের দিন মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে কদম আলীর বুকে প্রচন্ড ব্যথা শুরু করে। কদম আলীকে স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান।


এ বিষয়ে কদম আলীর ভাই রুহুল আমিন বলেন, আমার ভাইয়ের সঙ্গে আমিও ধান কাটতে গিয়েছিলাম। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত একসঙ্গে ধান কেটেছিলাম আমরা। ঈদের পরের দিন থেকে আবার ধান কাটা শুরু করার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই রাত সাড়ে ৩টার পর থেকে ভাই বলছিলেন— আমার বুক জ্বলে যাচ্ছে, আমাকে বাঁচাও। আমরা স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নেওয়ার পর কিছুক্ষণ পর ভাই মারা যায়। 


এ বিষয়ে ধান কাটা দলের প্রধান ইউসুফ আলী বলেন, আমি কয়েক বছর থেকে ওই  গ্রামে ধান কাটতে লোক নিয়ে যায়। আমার জীবনে এটিই এমন ঘটনা প্রথম ঘটে গেল।


আড়ানী পৌরসভার ২ নম্বর গোচর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নওশাদ আলী বলেন, এটি একটি অনাকাংক্ষিত ঘটনা। কদম আলী একজন অত্যন্ত দরিদ্র মানুষ। তার বাড়ির ভিটা ছাড়া কোনো জমি নেই। কাজ করে কোনোমতে সংসার চালাতেন। কোনো হৃদয়বান ব্যক্তি এগিয়ে এলে তার স্ত্রীর উপকৃত হতো।

জেলার খবর এর আরও খবর: