যশোরের শার্শা উপজেলার সাতমাইল পশুরহাটে ক্রেতাশূন‍্য, খামারীদের মাথায় হাত

 প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০২২, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন   |   অর্থ ও বাণিজ্য



 আব্দুল জব্বার, যশোর জেলা ব‍্যুরো প্রধান।।


যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া-সাতমাইল পশুরহাট দক্ষিনাঞ্চলের সর্ববৃহৎ পশুর হাট নামেই পরিচিত। এ হাটে ঝিকরগাছা, কলারোয়া, চৌগাছা, শার্শা, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহসহ বিভিন্ন পার্শবর্তী জেলা থেকে গরু ক্রেতা-বিক্রেতারা আসেন।


গত কয়েক বছর ভারত থেকে হাজার হাজার গরু আসলেও এবার বিএসএফের কড়াকড়ি নজরদারিতে ভারতীয় গরু এই হাটে না আসলেও দেশে উৎপাদিত খামারি গরু আসছে হাটে। তবে গতকয়েক বছরের তুলনায় চলতি বছর বন্যাসহ বিভিন্ন দুর্যোগের কারণে বাইরের ব্যাপারী কম আসায় লোকসানের মুখে পড়েছে খামারি ও ব্যবসায়িরা।


এদিকে হাট মালিক কর্তৃপক্ষরা বলছেন, উত্তরাঞ্চলে বন্যার প্রভাবে এবার হাটে ক্রেতা কম। গরুর আমদানি বাড়লেও দাম নিয়ে হতাশ বিক্রেতারা। ছোট বড় গরুতে জমজমাট হাট। তবে এবার পশুর দাম কম। বিক্রেতাদের সমাগম থাকলেও নেই ক্রেতা। ফলে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ই পড়েছে বিপাকে।


মেহেরপুর, শরিয়তপুর ও ঢাকা চিটাগাং থেকে কিছু ব্যাপারী আসলেও গরুর বাজার মন্দা থাকায় বেশি পশু কিনছে না তারা। ফলে গরু কিনে পড়েছেন বিপাকে। লোকসান পোষাতে ঢাকার বাজার ধরতে অপেক্ষা করছেন তারা।


ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতি বছর পশু কেনা বেচা করে সন্তুষ্ট হয়ে বাড়ি ফেরা যায়। কিন্তু এবার অর্ধশতাধিক গুরু কিনে পড়তে হচ্ছে সমস্যায়। লোকসানের মুখে তারা ঢাকার বাজার ধরতেও চেষ্টা করছেন।


এদিকে এ বছর কম দামে গরু কিনতে পেরে খুশি ক্রেতারা-এবার প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে দাম কম হওয়ায় পশুর প্রতি আগ্রহ ক্রেতাদের।


সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় ৫ বছর আগেও এই হাটে প্রচুর ভারতীয় গরু আসতো। কিন্তু জেলায় গরু মোটাতাজাকরণে কৃষকরা আগ্রহী হওয়ায় এখন আর তেমন আসে না। সাতমাইলের এই বড় হাটে এবার খামার ও বাড়িতে মোটাতাজা করা দেশি গরুর পাশাপাশি হরিয়ানা, সিন্ধি, বুগদায়, ফ্রিজিয়ান, জার্সি, পাকিস্তানি নানা জাতের গরু উঠেছে।


সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া এলাকার ক্রেতা আসাদুজ্জামান বলেন, কোরবানির জন্যে গরু কিনতে দু-তিন হাট ঘুরেছি। গরুর সাইজ অনুযায়ী বিক্রেতারা বেশি দাম হাঁকছেন। গতবছর যে গরু ৭০ হাজারে কিনেছি, এবার তার দাম বলছে এক লাখের বেশি।


শার্শা উপজেলার জসীমউদ্দীন বলেন, মোটামুটি রকম একটি গরু পছন্দ হয়েছে। বাজেট ৭০ হাজার। কিন্তু তারা লাখের নিচে নামতে চাইছেন না।


আলী হোসেন নামে আরেক ক্রেতা বলছেন, পছন্দের মতো সুন্দর গরু পেয়েছি । কিন্তু দেড় লাখের নিচে বিক্রি করবে না। আমি এক লাখ পর্যন্ত দাম বলেছি। বিকাল পর্যন্ত দেখবো, দামে পোষালে আজই নিয়ে যাবো। নইলে শনিবারের হাটে আরেক দফা আসবো।


বাগআঁচড়া সাতমাইল পশুর হাট এজারাদার ও সাবেক চেয়ারম্যান ইলিয়াস কবির বকুল জানান, প্রায় ১৩ কোটি টাকায় হাট ডেকে পড়েছেন বিপাকে। ক্রেতা কম হওয়ায় বাড়ছে হতাশা। অন্যান্য বছর কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে বাড়ে পশু আমদানি। গত দু‘হাটে বেচাকেনা হয়েছে ১০ হাজার গরু। তবে এ বছর আশানুরূপ গরু আসেনি এ হাটে। পশুরহাটে বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা-ও সুরক্ষা। ঈদের আগে বিক্রি বাড়ার আশা করছেন হাট কতৃপক্ষ।


এই বিষয়ে জানতে চাইলে, শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নারায়ন চন্দ্র পাল বলেন, উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পশুরহাটে নিরাপদ পশু বিক্রিতে হাট তদারকি করছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ। কেনাবেচায় সবাইকে করা হচ্ছে সতর্ক। পাশাপাশি পুলিশি নজরদারিও বৃদ্ধি করা হয়েছে।

অর্থ ও বাণিজ্য এর আরও খবর: